আচরণবিধি

  • কার্যদিবসে ছাত্র-ছাত্রী নির্ধারিত ইউনিফর্মে প্রতিষ্ঠানে আসবে। এমনকি বোর্ড ও বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণসহ প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে যে কোন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে বাইরে গেলে ইউনিফর্ম পরে যেতে হবে। ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে অবশ্যই সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।
  • প্রতিদিনের পাঠ অনুশীলন ও বাড়ির কাজ সম্পন্ন করে প্রতিষ্ঠানে আসতে হবে।
  • অভিভাবক প্রতিদিন ডায়েরিতে লেখা শিক্ষকের মন্তব্য পাঠ করে যথাস্থানে স্বাক্ষর/মন্তব্য লিখবেন।
  • ছাত্র-ছাত্রী পাঠোন্নতি বিষয়ে আলোচনার জন্য প্রতি শনিবার ১১.০০ ঘটিকা থেকে ১৩.০০ ঘটিকা পর্যন্ত উপাধ্যক্ষ বা একাডেমিক কো-অর্ডিনেটরের সাথে সাক্ষাত করা যাবে।
  • ক্লাস চলাকালীন বিশেষ প্রয়োজনে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গন ত্যাগ করতে হলে অধ্যক্ষের অনুমতি লাগবে। স্কুল চলাকালীন ছুটির ক্ষেত্রে অভিভাবকদের লিখিত অনুরোধ/উপস্থিতি অপরিহার্য।
  • প্রতিষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকতে হলে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে অধ্যক্ষের অনুমতি নিতে হবে। অননুমোদিত অনুপস্থিতির জন্য নির্ধারিত হারে জরিমানা করা হবে।
  • নির্ধারিত তারিখে শহরের যে কোন ট্রাস্ট ব্যাংক শাখায় ব্যাংকিং কার্যদিবসে নিজ ব্যবস্থায় বেতন ও ফি প্রদান করতে হবে। অন্যথায় বিলম্ব ফি ধার্য করা হবে। বিলম্ব ফি বছরে জুলাই ও অক্টোবরে গ্রহণ করা হবে।
  • লেখাপড়ায় অমনোযোগীতা, অবাধ্যতা, অশোভন আচরণ, পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন, শৃঙ্খলাবিরোধী কার্যকলাপ ইত্যাদি কারণে বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র দেওয়া হবে।
  • নির্ধারিত সময়ের পূর্বে স্কুলে আসতে হবে। স্কুল শুরু হওয়ার সাথে সাথে গেইট বন্ধ করে দেয়া হবে। নির্ধারিত সময়ের পর যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়া কোনো ছাত্র-ছাত্রীকে ক্লাসে ঢুকতে দেওয়া হবে না। যানজট যুক্তিসঙ্গত কারণ নয়।
  • রাজনৈতিক ও অন্যান্য কারণে শ্রেণি কার্যক্রম বিঘ্নিত হলে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে (শুক্রবার) ক্লাস অনুষ্ঠিত হবে।
  • যে কোন শিক্ষার্থী কার্যদিবসের ন্যূনতম ৬০% শ্রেণিতে উপস্থিত থাকতে ব্যর্থ হলে তাকে পরবর্তি শ্রেণিতে উর্ত্তীর্ণ করা হবে না।
  • হাসপাতালে ভর্তি ছাড়া কোন অনুপস্থিতির আবেদন পত্র গ্রহণ করা হবে না।
  • ফলাফল ঘোষণার দিনে পিতা / মাতা উপস্থিত না থাকলে কোন শিক্ষার্থীর রিপোর্ট কার্ড / ফলাফল প্রদান করা হবে না।